fbpx

তমিজ উদ্দীন লোদীর কবিতা

একটি শীতল হাওয়া

যারা ভেবেছিল রূঢ়তাই একমাত্র।

চালাকির নখরামিতে জয়

জটিল রাজনীতির গাড্ডা, অসূয়া

পণ করা, না মানা পরাজয়।

 

যারা নিত্য চর্চায় এনেছিল খেয়োখেয়ি

নিমেষে চোখ উল্টে নেয়ার সংস্কৃতি

যারা চালু করে দিয়েছিল মোলায়েম নয়

কটু, বিস্বাদ, ঝাঁঝালো, রুক্ষ ধুলোর ঝড়।

 

তাদের চোখেমুখে লাগছে নরম হাওয়ার ঝাপটা

পরিশীলিত, সুন্দরের শিল্পাঘাত

একটি ঠাণ্ডা, শীতল হাওয়া এসে উল্টে দিচ্ছে সব।

 

 

সিকস্তির ডাক

খুব সাদামাটা নদী সিকস্তির বাঁক যেন ডাকে

এসো হে বালক তুমি মোহনায় মায়ামুগ্ধময়

জ্যোৎস্নাধোয়া মুগ্ধ বিভাবরী ঋদ্ধ সেটুকু সময়;

যদিও এখনো ঈর্ষা মৃত্যুভয় প্রতিহিংসা থাকে।

 

তবুও অচেনা ঢেউয়ে মেতে ওঠে পুরনো মাতাল

ফেলে দ্বন্দ্ব ফেলে ক্রোধ ফেলে বহুল সংশয়

বিপ্রতীপ কোণ থেকে জেগে ওঠে লাল সূর্যোদয়

প্রজন্ম প্রজন্ম থেকে ভালোবাসা উথাল-পাতাল।

 

কী করে উপেক্ষা করি সেই চেনা সিকস্তির ডাক

যদিও পলির পাঁকে ঠেসে গেছে যৌবনের হাঁক।

 

 

বৈষম্যহীন শব

মায়া কি প্রপঞ্চের আড়াল থেকে উঁকি দিচ্ছে যে ছায়া

তা-ই তোমার আসল চেহারা

যতই তুমি ক্যামোফ্লেজ নাও

আয়নায় জমে থাকা বাষ্পের মতো তা ঠুনকো

 

ভেতরে হাড়ের খাঁচা, মাংসময় যন্ত্রাংশ সব

তারই মধ্যে মাৎসর্য বিষ, রিরংসা, সংহার বাসনা

পরিশেষে পরিণাম একই, বৈষম্যহীন শব।

 

গুগল নিউজে: সুধাপাঠ

আরো পড়ুন: পলিয়ার ওয়াহিদের কবিতা

2 thoughts on “তমিজ উদ্দীন লোদীর কবিতা

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!