fbpx

বাংলা সাহিত্যে নক্ষত্র পতন: হাসান আজিজুল হকের প্রয়াণ

বাংলা কথাসাহিত্যের উজ্জ্বলতম নক্ষত্র ‘আগুনপাখি’খ্যাত হাসান আজিুল হক মারা গেছেন। রাজশাহীতে নিজ বাসভবনে ৮২ বছর বয়সে গতকাল ১৫ নভেম্বর সোমবার রাত সাড়ে ন’টায় না ফেরার দেশে চলে গেছেন এই লেখক। গত সেপ্টেম্বর মাসে অসুস্থতার কারণে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। সেবার তিনি বার্ধক্যজনিত রোগ থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছিলেন। তিনি এক পুত্র ও তিন কন্যার জনক ছিলেন।

 

১৯৩৯ সালের ২ ফেব্রুয়ারি পশ্চিমবঙ্গের বর্ধমান জেলার যবগ্রামে জন্মগ্রহণ করেন হাসান আজিজুল হক। ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের পর তাঁর পরিবারে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান চলে আসে। তখন থেকেই তাঁরা রাজশাহী এলাকায় বসবাস করেন। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে দর্শন বিভাগে পড়াশোনা শেষ করে রাবি-তেই দর্শন বিভাগে অ্যধাপনার মাধ্যমেই কর্মজীবন সম্পন্ন করেন তিনি।

 

বাংলা সাহিত্যের ছোটগল্পকারদের মধ্যে নিজেকে তিনি উজ্জ্বলতম হিসেবে রেখে গেছেন। তাঁর সাহিত্যচর্চা শুরু হয় ১৯৬০ সালে। তারঁ লেখালেখির মূল উপজীব্য ছিলো রাঢ় অঞল, দেশভাগ, মুক্তিযুদ্ধ, অনাহার, মহামারি, ধর্মীয় সাম্প্রদায়িকতা প্রভৃতি।

হাসান আজিজুল হকের উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকর্মের মধ্যে ১৯৬৪ সালে প্রকাশিত প্রথম গল্পগ্রন্থ ‘সমুদ্রের স্বপ্ন শীতের অরণ্য’, ১৯৬৭ সালে প্রকাশিত গল্পের বই ‘আত্মজা ও একটি করবী গাছ’, ১৯৭৩ সালে প্রকাশিত ‘জীবন ঘষে আগুন’, ১৯৭৫ সালে প্রকাশিত ‘নামহীন গোত্রহীন’, ১৯৯৭ সালে প্রকাশিত ‘মা মায়ের সংসার’, ২০০৭ সালে প্রকাশিত সর্বশেষ গল্পের বই ‘ বিধবাদের কথা’, ১৯৮১ সালে প্রকাশিত প্রবন্ধগ্রন্থ ‘কথাসাহিথ্যের কথকতা’, ১৯৮৬ সালে প্রকাশিত ‘সক্রেটিস’, ২০০৬ সালে প্রকাশিত উপন্যাস ‘আগুনপাখি’, ২০১৩ সালে প্রকাশিত উপন্যাস ‘সাবিত্রী উপাখ্যান’, ২০০৬ সালে প্রকাশিত হয় উপন্যাসিকা ‘শিউলি’, ১৯৮৪ সালে প্রকাশিত কিশোরসাহিত্যের বই ‘লালঘোড়া আমি’, ২০১৩ সালে প্রকাশিত হয় ‘লন্ডনের ডায়েরি’ উল্লেখযোগ্য।

২০০৯ সালে তাঁর আত্মজীবনীগ্রন্থ ১ম অংশ ‘ফিরে যাই ফিরে আসি’ এবং ২য় অংশ ‘উঁকি দিয়ে দিগন্ত’ ২০১১ সালে প্রকাশিত হয়। এছাড়াও তাঁর সম্পাদনায় ১৯৮৯ সালে প্রকাশিত হয় ‘দুই বাংলার ভালোবাসার গল্প’ নামে গল্প সংকলন, ২০১২ সালে প্রকাশিত হয় বং বাংলা বাংলাদেশ।

হাসান আজিুজুল হক সাহিত্য সাধনার জন্য অসংখ্য পুরস্কার সম্মাননা লাভ করেছেন। ২০১৯ সালে সাহিত্য শাখায় স্বাধীনতা পুরস্কার, ২০০৮ সালে আনন্দ পুরস্কার, ১৯৭০ সালে বাংলা একাডেমি পুরস্কার, ১৯৯৯ সালে একুশে পদক লাভ করেন হাসান আজিজুল হক।

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা

আরো পড়ুন: জামিল হাদীর কবিতা

 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

error: Content is protected !!